৫ হাজারের ঋণে ২ লাখ ১০ হাজার আদায়ের পর শিশু বিক্রি: অবশেষে আটক সেই লাকী

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় ৬৫ হাজার টাকায় নবজাতককে বিক্রির ঘটনার মূল হোতা লাকী বেগমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার রাতে তাকে মাসদাইর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।সোমবার সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে লাকী বেগমকে আদালতে পাঠালে একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়।ফতুল্লা মডেল থানার এসআই হারেছ শিকদার

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে লাকী বেগম নবজাতক শিশুকে বিক্রির ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন।এর আগে, পুলিশ শনিবার রাতে মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থানার দক্ষিণ পাশা থেকে এক বছর আগে বিক্রি করা শিশুটিকে উদ্ধার করে। ঐ সময় আটক করা হয় শিশুটিকে কিনে নেয়া রানু বেগমকে।শিশুর

মা রানী বেগম পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া থানার বাদারতলীর হান্নান চৌকিদারের স্ত্রী। তারা ফতুল্লা থানার আলীগঞ্জ বিডব্লিউটি কলোনিতে বসবাস করেছেন। শিশুটির মা রানী বেগম জানান, দুই বছর আগে অভিযুক্ত লাকী বেগমের কাছ থেকে তিনি পাঁচ হাজার টাকা ঋণ নেন। গত ২ বছরে ঐ টাকার বিপরীতে লাকী বেগমকে ২ লাখ ১০ হাজার

টাকা দেন। এক বছর আগে সুদের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ায় তার নবজাতক সন্তানকে বিক্রি করে সম্পূর্ণ টাকা আত্মসাৎ করেন লাকী বেগম। পরবর্তীতে গত বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) পুনরায় তার বাড়িতে গিয়ে আসল এবং সুদসহ ১ লাখ ৩ হাজার টাকা দাবি করেন লাকী বেগম। অন্যথায় মারধর করা হবে বলে হুমকি দেন।এ ঘটনায় ফতুল্লা থানায় অভিযোগ করলে নবজাতক শিশু বিক্রির চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে।

Leave a Comment