৩ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে টিউশনি করা মেয়েটাই আজ ম্যাজিস্ট্রেট

রাজবাড়ী সদর উপজেলার দাদাশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা ও ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেন মলমগীরের (৫০) মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে মলমগীরের মৃত্যুর এক মাস পর তার বোন আলেয়া জামান বাদী হয়ে রাজবাড়ীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ১নং আমলি আদালতে মৃতের স্ত্রী ও তার পরকীয়া প্রেমিককে আসামি করে মামলা করেন। একইসঙ্গে কবর থেকে মরদেহ উত্তোলন করে ময়নাতদন্তের জন্যও আবেদন করা হয়।আসামিরা হলেন, মৃত

মলমগীরের স্ত্রী যুথি আক্তার (২১) ও তার পরকীয়া প্রেমিক শহীদ ওহাবপুর ইউনিয়নের নিমতলা গ্রামের দেলোয়ার শেখের ছেলে মো. আরিফ শেখ (২৪)।শনিবার (১৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় আরিফ শেখ মৃত মলমগীরের বাড়িতে যান তার প্রেমিকা যুথির সঙ্গে দেখা করতে। সেসময় গ্রামবাসীর সন্দেহ হলে তাদের আটক করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গণ্যমান্যদের বিষয়টি জানায়। ওই সময় উপস্থিত সবার সামনে মৃত মলমগীরের স্ত্রী যুথি জানান আরিফ শেখ তার স্বামী। আদালতের মাধ্যমে তারা চলতি বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি

বিয়ে করেছেন।অর্থাৎ মলমগীরের মৃত্যুর ১৫ দিন আগে যুথি তার প্রথম স্বামী মলমগীরকে তালাক না দিয়েই দ্বিতীয় বিয়ে করেন। আর এতেই আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেন মলমগীরের মৃত্যু সবার কাছে রহস্যজনক হয়ে ওঠে।মলমগীরের পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়দের ধারণা তার স্ত্রী যুথি এবং পরকীয়া প্রেমিক আরিফ শেখ কৌশলে মলমগীরকে হত্যা করে স্ট্রোকজনিত মৃত্যু বলে চালিয়েছে।জানা যায়, মোশারফ হোসেন মলমগীর রাজবাড়ী সদর উপজেলার দাদশী ইউনিয়নের

আওয়ামী লীগ নেতা ও ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য। ১৪ মার্চ মধ্যরাতে তিনি স্ট্রোকজনিত কারণে মারা যান। ভোরে বিষয়টি জানাজানি হয়। ওই সময় স্বাভাবিক মৃত্যু ভেবে যথাযথ নিয়ম মেনে পরদিন বিকেলে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।মামলার বাদী মৃতের বোন আলেয়া জামান জানান, যে নারী স্বামী ও দুটি শিশু সন্তান রেখে গোপনে বিয়ে করতে পারে সে সবই করতে পারে। তার ভাইয়ের মৃত্যু নিয়ে প্রথমে সন্দেহ হলেও মেনে নিয়েছিলেন যে স্ট্রোকজনিত কারণে মৃত্যু হয়েছে।

কিন্তু যখন যুথির পরকীয়া প্রেমিক তাদের বাড়িতে এসে ধরা পড়েছে এবং জানতে পেরেছেন তার ভাইয়ের মৃত্যুর ১৫ দিন আগে গোপনে তারা বিয়ে করেছেন, তখন সন্দেহ সঠিক মনে হয়। আসলে তার ভাইকে কৌশলে হত্যা করে তারা স্ট্রোক বলে চালিয়েছে। সব বুঝে উঠতে দেরি হওয়ায় মামলা করতে দেরি হয়েছে।বাদীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট লিয়াকত আলী জানান, রাজবাড়ীর ১নং আমলি আদালতের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কায়ছুন্নাহার সুরমার আদালতে মামলাটি দাখিল করা হয়েছে। পাশাপাশি ময়নাতদন্ত করতে কবর থেকে মরদেহ উত্তোলনের জন্য আবেদন করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো আদেশ দেননি আদালত।

Leave a Comment