১০১ টাকা কাবিনে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর বিয়ে

 বিয়ে করতে গেলে কাবিনে মাছ বাজারের মতো দর কষাকষি হবে, এটাই বর্তমানের স্বাভাবিক চিত্র। তবে চিরাচরিত প্রথাকে ভেঙে দিয়ে মাত্র ১০১ টাকা কাবিনে বিয়ে করতে সম্মতি দিলেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জুয়েনা হক মুমু। তিনি বরিশালের স্বরূপকাঠির মেয়ে। এদিকে সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে যাওয়ার পর প্রশংসায় ভাসছেন ওই শিক্ষার্থী। তাদেরকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তবে অনেকে বিষয়টি নিয়ে সমালোচনাও করেছেন।

এ বিষয়ে জুয়েনা হক মুমু বলেন, অনেক মেয়ে এবং মেয়ের ফ্যামিলি ইনসিকিউরড থাকে মেয়ের ফিউচার নিয়ে। ওই জায়গা থেকে আমার মনে হয়েছে কাবিন কখনোই কাউকে সিকিউরিটি দিতে পারে না। বরং এটা মেয়ের আত্মসম্মানের ব্যাপার। কাবিনের টাকায় ডিভোর্সের পরের জীবন কাটাবে এমন খারাপ নিয়তের বিয়ে কখনোই সুখ আনতে পারে না। সম্পর্কে ভালোবাসা এবং বিশ্বাস থাকলে সবকিছুই সম্ভব।অপর দিকে এ বিষয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং শিক্ষার্থী শামামা ইসলাম মোহনা বলেন, অনেক ইসলামিক স্কলারের মতে, যদি ১০ দিরহামের কমে কোনো নারী দেনমোহর নির্ধারণে রাজি হয় তবে এ দেনমোহর ইসলামের দৃষ্টিতে বৈধ হবে না। তবে দেনমোহরের সর্বোচ্চ কোনো পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়নি। ১০ দিরহামের ওপরে যে কোনো পরিমাণ দেনমোহর নির্ধারণ করায় কোনো বাধা নেই। ১০ দিরহাম বাংলাদেশি টাকায় ৩ হাজার ১৫০ টাকা। সামর্থ্য থাকলে এর বেশি নির্ধারণ করা যায়।

Leave a Comment