স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আ’গুন, ৭ দিন পর মৃ’ত্যু!

দুই বছর আগে বধূ বেশে স্বামীর সংসারে গিয়েছিলেন সাদিয়া। মাত্র ছয় মাস সুখে সংসার করতে পেরেছেন তিনি।

তারপর যৌ”তুকের দাবিতে শুরু হয় সংসারে অশান্তি, পর্যায়ক্রমে তা রূপ নেয় নির্যাতনে। অবশেষে স্বামীর দেওয়া কেরোসিনের আ”গুনে দ”গ্ধ হয়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

এর আগে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে মৃ”ত্যুর সঙ্গে লড়াই করে দীর্ঘ ৭ দিন। শনিবার ভোর সাড়ে ৪টায় মৃ”ত্যু হয় সাদিয়ার।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ২০২০ সালে দেবিদ্বার উপজেলার গুনাইঘর গ্রামের নুরুল হক সরকারের পুত্র আসাদ সরকারের সঙ্গে বিয়ে হয় একই উপজেলার পদ্মকোট গ্রামের অপুল সরকারের মেয়ে সাদিয়া আক্তারের। বিয়ের পর প্রথম ৫-৬ মাস তাদের সংসার ভালোভাবেই চলছিল।

কিন্তু তারপর থেকে শুরু হয় যৌতুকের টাকার জন্য সাদিয়াকে চাপ, যৌ”তুক না দেওয়ায় চলে শারীরিক নি”র্যাতন। এর মাঝে তাদের একটি ছেলে সন্তান জন্মের কয়েক ঘণ্টা পরই মারা যায়। তারপর থেকে যৌ”তুকের জন্য আরও চাপ দেন আসাদ ও তার পরিবার।

গত কয়েক মাস ধরে বাবার বাড়ি থেকে ৫ লাখ টাকা এনে দেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে তার স্বামী। টাকা না দিলে আ”গুনে পু”ড়িয়ে মারার হু”মকি দেয় সাদিয়াকে।

সাদিয়ার বাবা অপুল সরকার প্রবাস থেকে বাড়ি ফিরে বর্তমানে বেকার। বাবার কাছে এত টাকা চাইতে পারবেন না জানালে সাদিয়ার ওপর নি”র্যাতন চালান আসাদ। গত ২৩ এপ্রিল সকাল ৮টার দিকে দেবিদ্বার পৌর এলাকার বানিয়াপাড়ার ভাড়া বাসায় সাদিয়ার গায়ে কে”রোসিন ঢেলে আ”গুন ধরিয়ে দেন আসাদ।

পরে প্রতিবেশীদের কাছে প্রচার করেন- গ্যাসের চুলা থেকে আ”গুনে দ”গ্ধ হয়েছেন সাদিয়া। এরপর তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং পরে ঢাকায় নেওয়া হয়।

ঘটনার পর ২৭ এপ্রিল রাতে সাদিয়ার বাবা ফরিদুল আলম বাদী হয়ে দেবিদ্বার থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ তার স্বামী মো. আসাদ সরকারকে গ্রেফতার করে।

শনিবার সকালে সাদিয়ার নিকট আত্মীয় মাজহারুল ইসলাম সাদিয়ার মৃ”ত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন এবং ঘা”তক স্বামীসহ সকল আসামিদের ফাঁ”সি দাবি করেন।

এ ব্যাপারে দেবিদ্বার থানার ওসি আরিফুর রহমান বলেন, সাদিয়ার মৃ”ত্যুর খবর পেয়েছি। ঘটনার পর তার স্বামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Leave a Comment