স্ত্রীকে খুন করে হাসপাতালে লাশ রেখে পালালেন স্বামী

 

পারিবারিক কলহ নিয়ে মাদারীপুরের শিবচরে স্বামীর ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আয়শা আক্তার (৩০) নামে এক নারী খুন হয়েছেন। খুনের পর স্ত্রীর লাশ হাসপাতালে রেখে স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যরা পালিয়েছেন বলে জানা গেছে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

অভিযুক্ত স্বামীর নাম রাজ্জাক তালুকদার। সে জেলার শিবচর উপজেলার শিবচর ইউনিয়নের চরশ্যামাইল গ্রামের খালেক তালুকদারের ছেলে। রাজ্জাক তালুকদার পেশায় অটোরিকশা চালক। আর নিহত আয়শা বরিশালের আ: মান্নানের মেয়ে। আয়শা ও রাজ্জাকের শাওন নামের একটি ছেলে ও সিনথিয়া নামের একটি মেয়ে রয়েছে।পুুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, রাজ্জাকের সঙ্গে তার দ্বিতীয় স্ত্রী আয়শার পারিবারিক কলহ নিয়ে প্রায়ই ঝগড়া হতো। সোমবার সন্ধ্যায় ইফতারের সময় নিজ বাড়িতে রাজ্জাকের সঙ্গে আয়শার মোবাইলে কথা বলা ও পারিবারিক বিষয় নিয়ে ফের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে রাজ্জাক ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্ত্রী আয়শার পেটে ও নাকে আঘাত করে। এতে আয়শা ঘরের মেঝেতে লুটিয়ে পড়েন। ঘরে চেচাঁমেচির শব্দ পেয়ে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে আয়শাকে নিথর অবস্থায় ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখেন। তাকে হাসপাতালে নেওয়ার কথা বললে রাজ্জাক ও তার পরিবারের সদস্যরা আয়শাকে নিজেদের ইজিবাইকে করে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আয়শাকে রেখে এ সময় স্বামী রাজ্জাক ও তার পরিবারের সদস্যরা পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে হাসপাতাল থেকে নিহত আয়শার লাশ থানা হেফাজতে নিয়েছে।

স্থানীয় গোলেনুর বেগম বলেন, ‘ইফতারের সময় ওই বাড়ির চিল্লাচিল্লি শুনে আমরা দৌড়ে যাই। গিয়ে দেখি- ঘরে ওর স্বামী, তার মা, বাবা সবাই। আয়শা কাত হয়ে পড়ে আছে। তাড়াতাড়ি সবাই মিলে ধরে নিয়ে যায়। এরপর আয়শার নিথর দেহ হাসপাতালে রেখে পরিবারের সবাই পালিয়ে যায়।’

স্থানীয় রাসেল ফকির বলেন, ‘আয়শা রাজ্জাকের দ্বিতীয় স্ত্রী। প্রায়ই ওদের ঝগড়া হতো।’

ঘটনাস্থলে উপস্থিত শিবচর থানার এসআই সিদ্ধার্থ কুমার বলেন, ‘নিহতের শরীরে দুটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ঘাতক স্বামীকে ধরতে পুলিশের একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে।’

শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘হাসপাতালে আনার আগেই ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে। তার পেটে ও নাকের ওপরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অধিক রক্তক্ষরণেই তার মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিরাজ হোসেন জানান, এ ব্যাপারে শিবচর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Leave a Comment