সেই তরুণীর পক্ষে ভাইয়ের জামিন আবেদন, শুনানি মঙ্গলবার!

10 / 100

প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে বিয়ের দাবিতে ঢাকার উত্তরা থেকে আসা জামালপুরের তরুণী শিখা আক্তার মৌয়ের জামিন আবেদন গ্রহণ করেছেন আদালত।

আজ সোমবার বরগুনা জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন আবেদন করেছেন শিখা আক্তার মৌয়ের বড় ভাই মো. শিপন মিয়া। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন মৌয়ের পক্ষের আইনজীবী এম মজিবুল হক কিসলু।

আইনজীবী এম মজিবুল হক কিসলু বলেন, ‘বরগুনা জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালত–১ এ মৌয়ের জামিন আবেদন করেছিলাম। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো. নাহিদ হোসেন আবেদনটি গ্রহণ করে আগামীকাল মঙ্গলবার আসামির উপস্থিতিতে জামিন আবেদনের শুনানির দিন ধার্য করেছেন।’

কিসলু আরও বলেন, ‘মৌয়ের বিরুদ্ধে যেসব ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে সবগুলোই জামিনযোগ্য। আমরা বিষয়টি আমি আদালতকে বোঝাতে সমর্থ হয়েছি।

আদালত আমাদের আবেদন গ্রহণ করেছেন এবং শুনানির আদেশ দিয়েছেন। মঙ্গলবার শিখা আক্তার মৌকে আদালতে সশরীরে হাজির করে জামিন শুনানি হবে।’

বাদীপক্ষের আইনজীবী মো. সাইমুল ইসলাম রাব্বি বলেন, ‘জামিন শুনানিতে অংশ নিয়ে আমরা জামিনের আইনগত বিরোধিতা করব।’

উল্লেখ্য, গত ২৯ এপ্রিল জামালপুরের তরুণী ঢাকার উত্তরা থেকে বরগুনার বেতাগী উপজেলার চান্দখালী বাজার সংলগ্ন কৃষি ব্যাংক কর্মকর্তা মো. মোশাররফ হোসেনের বাড়িতে আসেন। এ সময় তরুণী মৌ দাবি করেন, মোশাররফ হোসেনের ছেলে রাজধানীর উত্তরায় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে অধ্যয়নরত মো. মাহমুদুল হাসানের সঙ্গে তাঁর প্রেমের সম্পর্ক।

বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সম্পর্ক গড়ে তোলার পর মাহমুদুল সম্প্রতি মৌয়ের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি অস্বীকার করে উত্তরা এবং গ্রামের বাড়িতে চলে যান।

পরে শিখা আক্তার মৌ মাহমুদুল হাসানের বাড়িতে গিয়ে বিয়ের দাবিতে অনশন শুরু করেন। এ সময় মাহমুদুল হাসানের পরিবারের কাউকে বাড়িতে না পেয়ে আ”ত্মহত্যার হু”মকি দেন মৌ।

একপর্যায়ে যুবক মাহমুদুল হাসানের মামাকে জি”ম্মি করে স্থানীয়দের সহায়তায় বাসার তালা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে ওই তরুণী। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় তো”লপাড় শুরু হয়। এ ঘটনায় মাহমুদুল হাসানের বাবা গত বৃহস্পতিবার বরগুনা জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে ওই তরুণীকে আ”সামি করে মামলা করেন। ওই মামলায় গত শুক্রবার ভোরে তরুণী মৌকে আটক করে বেতাগী থানা–পুলিশ। পরে তাঁকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়।

Leave a Comment