ধন্যবাদ এই নায়কদের, তাদের সবাইকে আমার স্যালুট: তামিম

7 / 100

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কনটেইনার ডিপোয় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ২১ ঘণ্টা পার হলেও এখনো নিয়ন্ত্রণে আসেনি আগুন। এখনো ক্ষণে ক্ষণে কেঁপে উঠছে এলাকা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের।চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯ জনে দাঁড়িয়েছে। বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়েছেন অন্তত চার শতাধিক মানুষ। এই বিপর্যয়ে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তামিম ইকবাল। অকুতোভয় ফায়ার ফাইটারদের ধন্যবাদ জানিয়ে চট্টগ্রামের ঘরের ছেলে তামিম ইকবাল তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে লিখেছেন, ধন্যবাদ এই নায়কদের, তাদের সবাইকে আমার স্যালুট।

আজ তিনি তার ফেরিফাইড ফেসবুক আইডিতে লিখেছেন,’ অভাবনীয় পরিস্থিতিতে জাতি হিসেবে আমরা এক আবারো প্রমাণিত হলো। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার তীব্রতা এবং বিস্তৃতি আমরা আঁচ করতে পারিনি কিন্তু পাশে থাকতে ঝাঁপিয়ে পড়েছি। মানুষ মানুষের জন্য। শত বিভেদ ভুলে আমরা সকলের পাশে আছি, কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলছি, লড়াই করছি। ধন্যবাদ এই নায়কদের। মানবতার আবারো জয় হলো। তাদের সবাইকে আমার স্যালুট।’

সেই সাথে আহতদের সহযোগিতায় এগিয়ে আসার ডাক দিয়েছেন মাশরাফী বিন মুর্ত্তাজা। সহমর্মিতা জানিয়েছেন তাসকিন-সৌম্যসহ ক্রীড়াঙ্গনের অনেক তারকা। হতাহতদের জন্য দোয়া করেছেন মালয়েশিয়ায় খেলতে যাওয়া জাতীয় দলের ফুটবলাররা। সবার একটাই চাওয়া, বিপর্যয় কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াক বাংলাদেশ।

এর আগে শনিবার (৪ জুন) রাত ৯টার দিকে বিএম কন্টেইনার ডিপোর লোডিং পয়েন্টের ভেতরে আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রথমে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেন। রাত পৌনে ১১টার দিকে এক কন্টেইনার থেকে অন্য কন্টেইনারে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। একটি কন্টেইনারে রাসায়নিক থাকায় বিকট শব্দে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, স্থানীয় শ্রমিকসহ অনেকে হতাহত হন। পরবর্তী সময়ে ইউনিট আরও বাড়ানো হয়। বর্তমানে ফায়ার সার্ভিসের ২৫টি ইউনিটের ১৮৩ কর্মী আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছেন। এছাড়া নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর ও কুমিল্লাসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলা থেকেও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছেন।

Leave a Comment