দিল্লীর রাস্তায় বেচতেন আচার, আজ নিজের পরিশ্রমে দাঁড় করিয়েছেন কোটি টাকার সাম্রাজ্য

 

সমাজে অনেক মানুষ আছে যারা প্রতি বছর চাকরির সন্ধানে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ভ্রমণ করে। এই শতাধিক মানুষের ভিড়ে অল্প কিছু সংখ্যক মানুষ আছে, যারা ব্যবসা করতে ছোট শহর থেকে বড় শহরে আসেন।

এমন পরিস্থিতিতে, আজ এমন এক মহিলার গল্প বলা হবে যে পরিবারের আর্থিক অবনতির কারণে শহরে চলে এসেছিল। এমতাবস্থায় শহরে পৌঁছানোর জন্য ওই মহিলা তার বন্ধুর কাছ থেকে ৫০০ টাকা ধারও নেয়।

যার সাহায্যে আজ তিনি কোটি টাকার ব্যবসা গড়ে তোলেন। উত্তরপ্রদেশের বুলন্দশহরের বাসিন্দা, কৃষ্ণ যাদব একটি মধ্যবিত্ত পরিবারে বিয়ে করেছিলেন। ১৯৯৫ সাল নাগাদ কৃষ্ণ যাদবের পরিবারের আর্থিক অবস্থা আরও খারাপ হয়ে পরে। এমতাবস্থায়, কৃষ্ণ বাড়ি চালানোর জন্য শহরে গিয়ে একটি কাজ করার সিদ্ধান্ত নেন, যার জন্য তিনি তার বন্ধুর সাহায্য নেন।

বন্ধুর কাছ থেকে ধার নিয়ে দিল্লি পৌঁছেছিলেন
বুলন্দশহর থেকে দিল্লি পৌঁছানোর জন্য, কৃষ্ণা তার বন্ধুর কাছ থেকে ৫০০ টাকা ধার নিয়েছিলেন। তারপরে তিনি তার পুরো পরিবার নিয়ে দিল্লি পৌঁছেছিলেন। এত বড় শহরে চাকরি পাওয়া খুবই কঠিন কাজ, যার কারণে তিনি তার যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ পেতে পারেননি।

এমন পরিস্থিতিতে, কৃষ্ণ বাধ্যতামূলকভাবে খানপুরের রেভলালা গ্রামে অবস্থিত কমান্ডেট বিএস ত্যাগীর খামার বাড়ির যত্ন নিতে শুরু করেন। সেই খামারবাড়িতে বরই ও গুজবেরির বিশাল বাগান ছিল, যা বাজারে চড়া দামে বিক্রি হত।

সেই খামার বাড়ির যত্ন নেওয়ার সময়, কৃষ্ণ যাদব গাছ এবং বাগানের প্রতি খুব অনুরাগী হয়ে ওঠেন।
এমন পরিস্থিতিতে কৃষ্ণা যাদব ভাবেন যে তিনি আচার তৈরির ব্যবসা শুরু করতে পারেন, যা খরচের চেয়ে অনেক বেশি আয় করে।

কৃষ্ণা যাদবের অনুপ্রেরণামূলক গল্প
এরপর ২০০১ সালে কৃষ্ণ যাদব কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ করেন এবং সেখানে তিন মাস খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ প্রযুক্তির প্রশিক্ষণ নেন। এরপর তিনি তিন হাজার টাকা খরচ করে ১০০ কিলোগ্রাম গুজবেরি এবং ৫ কেজি লংকার আচার তৈরি করেন।

সেই আচার বিক্রি করে কৃষ্ণ যাদব ৫,২৫০ টাকা লাভ করেছিলেন, যা আচার তৈরির খরচের দ্বিগুণেরও বেশি। এমতাবস্থায়, প্রথম প্রচেষ্টায় সাফল্য পাওয়ার পর, কৃষ্ণ যাদব সাহস পান এবং এই কাজ চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

স্বামী স্ত্রী একসঙ্গে ব্যবসা শুরু করেন
কৃষ্ণ যাদব বুঝতে পেরেছিলেন যে বাজারে আচারের চাহিদা বেশি, কিন্তু তিনি নিজে বাজারে গিয়ে আচার বিক্রি করতে পারেননি। এমতাবস্থায় তার স্বামী তাকে আচারের ব্যবসা শুরু করতে সাহায্য করেন, এরপর কৃষ্ণা বাড়িতে আচার তৈরি করতেন এবং তার স্বামী নজফগড়ের রাস্তায় তা বিক্রি করতেন।

সেই সময়ে, আমড়ার আচার বাজারে সম্পূর্ণ নতুন ছিল, তাই লোকেরা এর স্বাদ খুবই পছন্দ করত। এমতাবস্থায় মানুষের ভালো সাড়া পেয়ে বড় পরিসরে আচার তৈরি ও বিক্রির কাজ শুরু করার সিদ্ধান্ত নেন কৃষ্ণা।

শ্রী কৃষ্ণা আচার ব্র্যান্ড
কৃষ্ণা যাদব তার কঠোর পরিশ্রম দিয়ে বাজারে একটি ভাল জায়গা ধরে রেখেছিলেন। তারপরে তিনি শ্রী কৃষ্ণা পিকলস ব্র্যান্ডের ভিত্তি স্থাপন করেন। এই ব্র্যান্ডের ব্যানারে বিভিন্ন ধরনের আচার, মুরাব্বা ও চাটনি তৈরি করা হয় এমনটাই লিখতেন তিনি। এই সমস্ত আচার তৈরিতে প্রায় ৫০০ কুইন্টাল ফল ও সবজি ব্যবহার করা হয়। যার মূল্য বাজারে কোটি টাকা। শ্রীকৃষ্ণ আচার আজ বাজারে একটি সুপরিচিত ব্র্যান্ড, যা খাবারের স্বাদ বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।

বর্তমানে শ্রী কৃষ্ণ ব্র্যান্ডের বিভিন্ন ধরনের পানীয় বাজারে বিক্রি হচ্ছে। যার স্বাদ এতটাই দারুণ যে এর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। কৃষ্ণা যাদব এমন একজন মহিলা, যিনি কেবল কঠিন সময়ে ঘর চালানোর জন্য প্রস্তুত হননি বরং একটি সফল ব্যবসাও গড়ে তুলেছেন।

নারী শক্তি পুরস্কারে ভূষিত হন
আজ তার সংস্থা একটি বহুতল ভবনে উপস্থিত রয়েছে। যা তার এই কঠোর পরিশ্রমের জন্য, তিনি ৮ মার্চ ২০১৬-এ ভারত সরকারের মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রক কর্তৃক নারী শক্তি পুরস্কারে ভূষিত হন। কৃষ্ণ যাদব এমন শত শত নারীর অনুপ্রেরণা যারা তাদের বাড়ির অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতির জন্য কাজ করতে চায়। একজন নারী যদি তার মনে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ থাকে, তাহলে সে সবচেয়ে কঠিন পথ অতিক্রম করে সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হয়।

Leave a Comment