টয়লেটে ফ্ল্যাশ করার আগমুহূর্তে নিজ নবজাতকের হাত দেখতে পেলেন শিক্ষার্থী মা

দুইবার প্রেগন্যান্সি টেস্ট করার পরেও নিজের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার প্রমাণ পাননি এক ব্রিটিশ নারী। অবশেষে হাসপাতালের টয়লেটে এক পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন তিনি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম স্কাই নিউজ ও ইন্ডিপেন্ডেন্টের খবর অনুযায়ী, যুক্তরাজ্যের রাজধানী লন্ডনে ঘটেছে এমন ঘটনা। লন্ডনের ২৩ বছর বয়সী লালিন মালিক এমনই এক অভূতপূর্ব অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়েছেন।

স্কাই নিউজের খবরে বলা হয়, সম্প্রতি পশ্চিম লন্ডনে নিজ বাড়িতে প্রচণ্ড পেটে ব্যথা অনুভব করেন তিনি। এরপর তার পরিবার তাকে নর্থউইক পার্ক হাসপাতালে নিয়ে যায়।

লালিন ভেবেছিলেন তিনি কোষ্ঠকাঠিন্যে ভুগছেন। তবে হাসপাতালের টয়লেটে যাওয়ার পর ফ্ল্যাশ করার ঠিক আগ মুহূর্তে সেখানে শিশুর হাত দেখতে পান তিনি।

ডেইলি মেলের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সাত মিনিট টয়লেটে পড়ে ছিল শিশুটি। পরে চিকিৎসাকর্মীরা এসে তাকে উদ্ধার করেন। উদ্ধার হওয়ার আগ পর্যন্ত শিশুটি মৃত বলেই ধারণা করেছিলেন লালিন।

লালিনের পরিবার জানায়, নবজাতককে সৃষ্টিকর্তার ‘আশীর্বাদ’ হিসেবেই স্বাগত জানিয়েছেন তারা। মা ও শিশু দুজনেই সুস্থ আছেন বলে নিশ্চিত করেছে স্কাই নিউজ।

ওই নবজাতকের নাম রাখা হয়েছে মোহাম্মদ ইব্রাহিম। লালিন মালিক বলেন, আমি কিছুই ভাবতে পারছিলাম না। ইব্রাহিমকে উদ্ধারের পর আমাকে আলাদা ঘরে রাখা হয়। আমি এবং আমার মা দুজনেই খুব কাঁদছিলাম।

এয়ো গ্রোচলোস্কি নামে নর্থউইক পার্ক হাসপাতালের এক চিকিৎসক নবজাতক ইব্রাহিমের জীবন বাঁচান। তিনি জানান, এটা আমার মেডিক্যাল ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বিস্ময়কর অভিজ্ঞতা। আমি কখনই এমন অবস্থায় কোনো শিশুর জন্ম হতে দেখিনি।

তিনি আরও বলেন, এর আগেও লালিনের মতো অনেকেই এসেছেন যারা জানতেন না যে তারা গর্ভবতী। তবে তারা লালিনের মতো এমন কঠিন পরিস্থিতিতে সন্তানের জন্ম দেননি। সেদিক থেকে বলতে গেলে, এই মা (লালিন মালিক) একজন বীর।

Leave a Comment