আগুন নেভাতে যাওয়ার আগে মায়ের কাছে দোয়া চেয়েছিলেন শাকিল

7 / 100

সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে গতকাল অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সেই আগুন নেভাতে যাওয়ার আগে মায়ের কাছে ফোন করে দোয়া চেয়েছিলেন ফায়ার ফাইটার শাকিল তরফদার। এই কথাই ছিল তার পরিবারের সঙ্গে শেষ কথা। তিনি গতকাল সীতাকুণ্ডের আগুনে নিহত হয়েছেন। শাকিল তরফদার সীতাকুণ্ডের কুমিরা ফায়ার সার্ভিসের ফায়ারফাইটার ছিলেন। তিনি খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার সুখদারা গ্রামের সাত্তার তরফদারের ছেলে।

শাকিলের মৃত্যুর খবর পেলে তার বড় ভাই এলাকার কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে চট্টগ্রামে গেছেন। এখনও ভাইয়ের মরদেহ বুঝে পাননি। এদিকে শাকিলের মৃত্যুর খবর শোনার পর থেকে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন মা। বাবা স্বাভাবিক থাকলেও কথা বলছেন না।

শাকিলের মা জেসমিন বেগম জানান, আগুন নেভাতে যাওয়ার আগে শাকিল তার মাকে ফোন করেছিলেন। এ সময় মায়ের কাছে দোয়া চেয়েছিলেন। আগামী কোরবানির ঈদে বাড়ি এসে খুলনা জোনের মনিরামপুর ফায়ার সার্ভিসের অফিসে যোগদানের কথা বলেছিলেন মাকে। রোজার ঈদে শাকিল সুখদারার বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে ঈদ করেছিলেন। তার মৃত্যু কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না তার মা।

পরিবারের বরাত দিয়ে সুখদারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন বলেন, শাকিল ২০১৯ সালের ২০ জানুয়ারি ফায়ার সার্ভিসে যোগ দেন। শুরু থেকেই শাকিল সীতাকুণ্ডের কুমিরা অফিসে দায়িত্ব পালন করছেন। চাকরির প্রথমবার শাকিলের মনিরামপুরে বদলি হওয়ার কথা ছিল। কোরবানির ঈদের পর সেখানে যোগদানের কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই শাকিল পৃথিবী থেকে বিদায় নিলেন। তার মৃত্যুতে পরিবার ও প্রতিবেশীদের মাঝে শোকের ছায়া নেমেছে।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান জানান, ডিপোতে বিস্ফোরণে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৯। এর মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের শাকিল তরফদারও রয়েছে। চট্টগ্রাম বিভাগীয় ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক আনিসুর রহমানও একই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

Leave a Comment